পেনাল্টি

অর্জুন বন্দ্যোপাধ্যায়

মাননীয় সম্পাদক

আমি ফুটবল মাঠের লোক নই। মাঠের বাইরেরও নই। আসলে মাঠ একটা মুভেব্‌ল ব্যাপার এটা তো মানবেন? যখন একটা মাঠে দুপুরবেলা ফুটবল খেলা হচ্ছে, বিকেলেই সে মাঠে ক্রিকেট ব্যাট নামবে। সন্ধে হবার আগে আগে র‍্যাকেট হাতে দু-তিনটে বিনুনী বাঁধা মেয়ে আসবে ব্যাডমিন্টন খেলতে সে মাঠেরই কোণ ঘেঁষে। সকালে বয়স্করা হাঁটবেন, চেষ্টা করবেন জগিং-এর। সুগার বেড়ে যাওয়া গৃহবধুরা হাঁটবেন হনহন ক’রে। তাহলে কি হল? দেখুন, দুপুরের ফুটবল মাঠ, বিকেলে ক্রিকেট মাঠ হয়ে গেল, সন্ধ্যায় সে ক্রিমিন্টন মাঠ (শব্দটা শুনলে স্মৃতিতে কোথাও ক্রিপস্‌ মিশন মনে হচ্ছে না?!) হতে গিয়ে একটুও লজ্জা পেল না মেয়ে দুটোকে দেখে। তো, মাঠ একটা মুভেব্‌ল ব্যাপার তো বটেই। তবে, আমি মাঠে যেতাম বিকেলে। আর অপেক্ষা করতাম সন্ধের। ফলে দুপুরের খেলাটা আমার খেলা হয় নি। আর বিকেলের খেলাটাতেও ভালো ক’রে মন বসাতে পারিনি, যেহেতু চোখ ছিল সন্ধের দিকে। এ্যাদ্দুর এসে আমার মনে হচ্ছে, মাঠ আরও মুভ করতে পারে। রাতে তো সে মাঠেই তাসের আড্ডা, সাট্টা। হয়ে গেল তাসের মাঠ ! তাহলে আর কি? এবারে শাফ্‌ল করুন। মাঠ শাফ্‌ল করুন। বেটে দিন মাঠ বাকিদের মধ্যে। মাঠ কল করুন। মাঠ চালুন। কি? মনে হচ্ছে না মাঠ দিয়ে তাস খেলছেন? হাতে হাতে মাঠ। মাঠ বেটে দিচ্ছেন। গোল ক’রে ব’সে থাকা আপনাদের চারজনের মাঝখানে বিছানার ওপরে ছুঁড়ে দিচ্ছেন হাতের মাঠ। এই খেলাটাই আবার একটু অন্য কিন্তু প্রায় একইরকমভাবে খেলছেন পাড়ায় পাড়ায় আমাদের প্রোমোটার বন্ধুরা। এই মাঠ আরো একটু মুভ করবে শীতকালে। যখন মাঠের ওপর বাঁধা স্টেজে কুমার শানু আর অলকা ইয়াগনিক আসবে। ক’দিন পরেই শুরু হয়ে যাবে গ্রামীণ হস্ত ও কুটীর শিল্পমেলা। এবারে দেখুন আপনার মনেও হয়ত প্রশ্ন উঁকি দিচ্ছে। মাঠে আপনি যাচ্ছেন, নাকি মাঠ আসছে আপনার কাছে? সেই প্রাচীন প্রশ্ন। মাঠ ঘুরছে আমি স্থির, নাকি আমি ঘুরছি মাঠ স্থির? মাঠের এই ধন্দটা না কাটলে কিন্তু খেলা শুরু করা যাবে না। কিন্তু খেলা তো শুরু হয়েই যায় নিয়মমতো।
কোন্‌ ক্লাস হবে তখন? টুয়েলভ্‌? না, বোধয় ফার্স্ট ইয়ার। ইকোনমিক্স পড়তে গেছি ব্যাচে। স্যর হঠাৎ বললেন, খেলা দুই প্রকার। পারফেক্ট ইনফরমেশন গেম, আর ইম্পারফেক্ট ইনফরমেশন গেম। কম্‌প্লিট ইনফরমেশন গেম হয়? এই ব’লে, কার একটা খাতায় যেন এঁকে দিলেন এই ছবিটা। আমরা ঝুঁকে প’ড়ে দেখছি স্যরের আঁকা। আমিও ঝুঁকেছিলাম। কিন্তু স্যরের ঐ খাতাটা আমার ভালো ক’রে দেখা হয়নি তখন। কেননা সে-ও তো ঝুঁকেছিল আড়-চোখে আমাকে দেখতে দেখতে।



তারপরে এইটা...



পরে, সেই আড়চোখে আমাকে দেখা বান্ধবীর বাড়িতেই যেতে হয়েছিল আমায় এই চার্ট বুঝতে। প্রথম ছবিতে, ১নং খেলোয়াড় F কিম্বা U স্ট্র্যাটেজি নেবে। ২নং খেলোয়াড় দেখবে এই ব্যাপারটা। দেখে, সে A অথবা R যেকোনো একটা রাস্তা বেছে নেবে। ধরা যাক্‌, ১নং খেলোয়াড় U স্ট্র্যাটেজি নিলো, আর ২নং খেলোয়াড় বেছে নিলো A, এর ফলে প্রথম জন ৮ পয়েন্ট আর দ্বিতীয় জন ২ পয়েন্ট পেলো। if all players know the moves previously made by all other players, তখন সেটা পারফেক্ট ইনফরমেশন গেম। ক’টা খেলাই বা এরকম হয়! ২নং ছবিতে খেলোয়াড়ের ধোঁয়াশা কির’ম স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে। এদিকে ততক্ষণে বান্ধবীর মা দিয়ে গেছেন বার্বন বিস্কুট আর চানাচুর। দ্বিতীয় ছবির ২নং খেলোয়াড়ের মতো আমিও তখন একটা foggy bar ঘেঁষে দাঁড়িয়ে। বুঝতেই তো পারছি না, বান্ধবীটি কী চায় ! আমি তো দুপুরের ঐ খেলাটা কখনো খেলিনি। আপনারা যাঁরা খেলেছেন, এবং সুপুরি গাছ দিয়ে বানানো গোলপোস্ট আগলেছেন, তাঁরা নিশ্চই জানবেন, পেনাল্টি শটের সময় বলটা কোন্‌ দিকে ছুটবে, ডায়ে না বাঁয়ে, সেই মতো আপনিও কোন্‌ দিকে ঝাঁপাবেন তাকে রুখতে, সেটা তো আপনাকেই ঠিক করতে হয়েছে। এবং ছবিতে দেখানো এই পদ্ধতি মেনেই তা’ করেছেন। আমিও তখন ভাবছিলাম মেয়েটাকে চুমু খেলে কি হবে? না খেলেই বা কি হবে? পেনটা নিতে গিয়ে ওর হাতটা আমার হাতে লেগে গেলে সেটা কি এমনিই লেগে গেল, নাকি কোনো বার্তা দিল সে? এই গেম থিওরি যে আসলে একটা প্রেম থিওরি, এই কথাটা স্যরকে বলতে খুব একচোট হেসেছিলেন উনি। তারপর বলেছিলেন, যা আমার জন্যে খয়ের ছাড়া চবন দিয়ে একটা একশ’ বিশ জর্দা পান নিয়ে আয়। সেদিন উনি আরেকটা খেলা বুঝিয়েছিলেন আমায়। এরমই এক বৃষ্টির দিন ছিল সেটা। ব্যাচে আমি একাই। বুঝিয়েছিলেন, সিমেট্রিক গেম আর অ্যাসিমেট্রিক গেম। যখন কোনো নির্দিষ্ট একটা স্ট্র্যাটেজির ফলে যে পে-অফ্‌ হচ্ছে, সেই পে-অফ্‌ কী হবে, তা’ যখন সেই স্ট্র্যাটেজি-খেলোয়াড় র ওপর নির্ভর করে না, বরং নির্ভর করে অন্যান্য আর কী কী স্ট্র্যাটেজি নেওয়া হয়েছে তার ওপর, সেটা সিমেট্রিক গেম। এবং যেখানে খেলোয়াড় বদলে ফেললেও পে-অফ্‌ বদলাবে না। দেখুন, মানুষগুলো বদলে যাচ্ছে। গ্যালারিতে ফিরে আসছে ২নং জার্সি। মাঠে ঢুকছে তার বদলি হয়ে ৬ কি ১০ নম্বর জার্সির খেলোয়াড়। যে গিয়ে এবার দাঁড়াবে ২নং খেলোয়াড়ের ঐ foggy bar ঘেঁষে। চিনতে পারছেন ওকে?

আমার শ্রদ্ধা নেবেন