বহিরাগতর ডায়েরী থেকে

অনির্বাণ বটব্যাল

কস্মিনকালেও যাদবপুরে পড়িনি । যাদবপুরও পড়েনি আমায় কোনোদিন । কাজে অকাজে উঠতে বসতে রাস্তাঘাটে কিস্যুতে না। অথচ আশ্চর্য আমারও যাদবপুর হল । ছোট্ট থেকে বড় হওয়া বা বেয়াড়া হওয়া আমার বেয়াদপপুরও যাদবপুরের সাথে পায়ে পা মিলিয়ে , গলায় গলা ফাটিয়ে হোক হোক হোক কলরব। তবে কি আমি বহিরাগত ?
এইযে বৃষ্টিতে বর্ষাতি হতে এসেছি আগুনের ,
ক্রমাগত বৃষ্টি ধুইয়ে দিচ্ছে আগুনের ক্লান্তিগুলি
তালে তালে হাততালিতে নাচছে দাউদাউ
ছিটকে পড়ছে ফুলকির বয়স- এইত প্রথম
এ বয়েসেও দাবানল দেখিনি আগে
দহন শিখেছি একার গোপনে
সহ্য করলে অসহ্য হব না কোথাও কোনোদিন
পুড়ে গেছে একা গাছ
এভাবেই
• আমি বহিরাগত কারণ –
আমি ওদের বয়স্ক নই , ৩০ পেরিয়ে গেছি । কিন্তু আলো নিবিয়ে দেওয়ার আগের মুহূর্তে যে ছেলেটিকে চুলের মুটি ধরে এক চড়ে ধরাশায়ী করার দৃশ্যটি দ্যাখা গেছে সে কি আমার ভাই নয়? ফোঁস হীন মেনে নিলেই –
পরিকল্পিত অন্ধকার সরীসৃপ হয়ে যায়
আলোকে মাটির নিচে রেখে
রপ্ত করে ফেলে খোলস ছাড়ার কৌশল
কি ভাবে চামড়াকে আঁশ বানাতে হয়
ঠাণ্ডা রক্তে বুকে হাঁটার আদব রীতি
তাই পারিনি
• আমি বহিরাগত কারণ –
এ মুহূর্তে আমি ছাত্র নই। তবে কি ছাত্রদের ডাক ছাত্ররা ছাড়া আর কেউ শুনবে না এমনটা ভাবছে কেউ? যেমন নেতাদের ডাক ফেউ ছাড়া শোনে না কেউ ? দুঃখিত হে ভাবুকগণ চাবুকেরা চামচিকে নয় যে উর্ধপদ হয়ে মুখদিয়ে মল ত্যাগে স্বভাব সিদ্ধ হবে কোনোদিন।
• আমি বহিরাগত কারণ –
মিছিলের ফাঁকে একটি সিগারেট খেয়েছি
লজ্জা লুকিয়ে ওদের কপালে ও গালে ছিঃ
বিদ্রূপে বিদ্ধ করছে আমায় বদভ্যাসে –
আন্দোলনের পোষ্টারে ক্যানভাসে
সুচতুর কৌশলে মদ ও গাঁজার গন্ধ মিশিয়ে দিলে
ওরা হাত জোড় করে – “ প্লিজ দাদা সিগারেট খাবেন না মিছিলে”
• আমি বহিরাগত কারণ –
ওদেরমত ফেটে পড়তে পারিনি , আকুল ভিজতে পারিনি । ছাতা নিয়ে ,গায়ে কাঁটা নিয়ে হেঁটে গেছি শুধু , বারবার ফুটে উঠেছে গুটি ... তারুণ্যের গুটি । শিরায় শিরায় ,শিঁড়দাড়ায় , হাড়ে মজ্জায় প্রবল সুনামি শিকার হতে রাজী নয় আর এবার শিকারী হওয়ার পালা।
• সত্যিই আমি বহিরাগত কারণ –
দেখলাম বৃষ্টিতে,আগুনে,তালিতে স্লোগানে বয়স ছাপিয়ে টগবগ ফিরছে আবার। অর্থাৎ বুড়ো হই নি , এখনো সত্যিই আমি বহী রাগত ......
হোক হোক হোক কলরব সর্বক্ষেত্র।
বেড়িয়ে আসুক ছাত্র শুধু ছাত্র শুধু ছাত্র যেভাবে তীক্ষ্ণ তীর এখানেও
মিছিলের মিছিরিগুলি –(আনুমানিক)
ক। অঘোষিত ইউনিফর্ম – কালো টিশার্ট আর জিন্স
খ। গড় বয়স – ২২-২৬
গ। সমাগম – ৫০০০০ জন
ঘ। মোট সময় – ঘণ্টা চারেক
ঙ। বিশেষ স্লোগানগুলি –
১) হোক হোক হোক কলরব (থিম স্লোগান)
২) লাঠির মুখে গানের সুর দেখিয়ে দিল যাদবপুর
৩) আয়রে ভিসি দেখে যা যাদবপুরের ক্ষমতা
৪) আয়রে পুলিশ মারবি যত ছাত্র মিছিল বাড়বে তত
৫) এই ভিসিকে চিনে নে OLX-এ বেচে দে
৬) যাদবপুরের ভিসি লাইট নিবিয়ে ছিছি
৭) কালীঘাটের ময়না এখানে ওসব হয়না
৮) এ শতকের দুটি ভুল / সি পি এম আর তৃণমূল
৯) হাতে হাতে কমরেড / গড়ে তোল ব্যারিকেড
১০) ........................ ওয়্যাক ওয়্যাক থু থু (বুঝতে পারিনি)
সমস্ত মিছিরি জুড়ে জুড়ে ধারালো ছুরি। ফালাফালা বিচ্ছিরিগুলি রঙ হীন মিছিলে রং খেলতে এলে কেড়ে নিও যাবতীয় কালো প্রকৃত সবুজে। উঠে আসুক যাদবপুর ২০০৫ থেকে এখন লংকাপুরে -
টগবগে সব মিছিলে মিছিলে তারুণ্য চকমকি
হোক কলরব হোক কলরব শুনতে পাচ্ছো কি?
তুমি ভেবেছিলে টুঁটি টিপলেই বেঁচে যাবে সম্মান ?
লাঠি কিংবা লাথি কসালেই তীব্র হচ্ছে গান
নিজেকে বাঁচাতে বর্বরতাকে খোলস করেছো গায়ে
অন্ধকার করলে কি কেউ অন্ধ হয়ে যায় ?

কিনতে পেরেছ নারীসম্মান গোপন ঠাণ্ডা কক্ষে
নির্যাতিতার বাবা হেঁটেছেন নির্যাতনের পক্ষে
মদ ও গাঁজার ছাপ্পা আসলে মুখোশ ব্যর্থতার
গ্রামে গঞ্জের আনাচে কানাচে মদ ব্যবসায় ছাড়
“তোমরা ছাত্র পড়াশুনো করো” – বিনয়ের অবতার
কলেজ বেড়েছে চাকরি কমেছে কতটা ভেবেছও তার ?

থেঁতলেছো মুখ কাড়তে পারোনি বুকের আগুন ভাষা
মৌন মিছিলও পায়ের আওয়াজে স্লোগানে স্লোগানে ঠাসা
ক্ষমতা বদলে সততার রঙে গিরগিটি উৎসব
কলরব হোক কলরব হোক , হোক হোক কলরব।

বহরমপুর, দিল্লী, বোম্বে কিংবা মেদিনীপুর
এই তো সবে শুরুয়াদ ভাই থেমো না যাদবপুর
বিপ্লব শেষ হয়না কখনো ঘুমিও না ভাইসব
কলরব হোক কলরব হোক , হোক হোক কলরব ......

ছড়িয়ে পড়ুক বেহিসেবী সব গ্রাম ও শহরতলী ।
যদি ভুল বলি , তবে টের পাই গায়ে আজীবন ভুলেরই নামাবলি।
প্রতিটি অলিগলির যাদবপুর হোক, লণ্ডভণ্ড হোক , মেরুদণ্ড হোক একবার । সুশ্রষায় হোক আরো গভীরতর ক্ষত। বহিরাগত একটি পিছল রাস্তার নাম। তাকে স্বাগত । অভিবাদন আমার কপালে নেই, ছিলও না্‌, থাকবেও না কোনোদিন ......
এবং চাইও না যেখানে গায়ে গায়ে পায়ে পায়ে রাস্তায় দাবানল ছুঁতে পারি – বয়স হারিয়ে ফেলে ভাসতে ভাসতে ডুবে যাওয়া শিখি । সর্দি কাশি জ্বর ভুলে বৃষ্টি নয় আপাদমস্তক ভিজে উঠি ভুলে, ফুলে ওঠে ভুল , ব্যথায় টাটরে ওঠে , টনটনায়... অজানা রক্তপাত পাঁজরের নিচে। জরুরী বার্তা দিক আসন্ন ঠিক – ওরে তোরা ভুল কর ... বারবার যেখানে সেখানে হঠকারী ভুল ...... প্রয়োজনে, অপ্রয়োজনে , সময়ে এবং অসময়েও ......