ম্যাড মঙ্ক

শুভ আঢ্য


৫৮
রাসপুতিন বলছি
দৃষ্টির বাইরে ঝরছি, তোমাদের
দিন কালো হল, আর বলো, তোমরা ঈশ্বরকে দেখতে পাচ্ছ
তোমরা আমার মণি দেখতে পাচ্ছ, তোমরা আমার
হাড়ের ভেতর বরফ দেখতে পাচ্ছ যথাযথ সময়,
আমি বুনো শুয়োরের মুখে চুমু খেয়ে তোমাদের জানাচ্ছি,
তাদের আর তোমাদের ভাষার তফাৎ আসলে নেই...
দৃষ্টির বাইরে টানা বারান্দা সেখানে ঈশ্বর...
হে অলকা, তোমরা কি আমার মণির
ভেতরের পাথর থেকে ক'টা মাছ তুলে আনবে?
তোমরা কি আমাকে কফিনের ভেতর থেকে চেনাবে
সেই বাক্সবন্দী খেলা? তোমরা কি... এই রাশিয়ার
মেঘের ভেতর হারিয়ে যাবে? ভারখোতুইয়ের পথের কাঁটা
হয়ে দাঁড়াবে না? আমাকে মুক্তি দাও হে নিরঞ্জন
যেন আমি দৃষ্টির ভেতর তোমাদের বসিয়ে নিতে পারি
শুধু সেখানে কোনো ফল থাকবে না, কোনো ফলাফল
থাকবে না, কেবল কর্মের ভেতর আমি ঝরছি
কর্মের বাইরে আমি ঝরছি, কর্মের অতীতবেত্তা হয়ে
ঝরছি আমি এবং তোমরা আমাকে স্পষ্টত দেখতে পাচ্ছ


৫৯
রাসপুতিন বলছি,
লোহার গান, আমার শরীর জুড়ে আর তোমরা
দেখছ নোটেশন গড়িয়ে যাচ্ছে, সে তো খাদের দিকেই
সুর, পাইনের ঝোপে বাড়ে যেমন আত্মা তোমাদের
আমার কাছে বেড়ালের থাবার মতো গুটিসুটি
সে গান লোহার... সে সুর, আঙুর খেতের ভেতর থেকে
মাথা তোলে, আর বলে বাতাস বও... চিরকালীন
বাতাস তুমি লোহার ওপর বও... শরীর জুড়ে আমার
তোমাদের ঈশ্বর গড়িয়ে যাচ্ছেন, তোমাদের ঈশ্বর
দয়াপরবশ হয়ে যাচ্ছেন গড়িয়ে ওই
লোহার গানের ওপারে, তোমরা কি ভাবছো আমি
এখুনি হাতল চিপে খুলে জানাজা দেখাবো? আমি কি
মোম ভরে দেবো তোমাদের মধ্যে? পাইনের বনে কি
তোমাদের আত্মার সাথে অবিকল তোমাদেরই মতো
হাঁটতে বেরুবো? অনাকাঙ্ক্ষিত আঙুরগুলো বাড়ছে
তাদের জল দাও, লোহার জল... বাতাস দাও,
যেন তারাও লোহার দানা হয়ে বেড়ে ওঠে আমার শরীরে



৬০
রাসপুতিন বলছি,
তোমাদের পশম থেকে শব্দ হয়, আমি দেখি
তোমরা সে শীতের ভাষা বুঝতে পারছো না
তোমাদের সহজ উপপাদ্য একটি টেবিল জুড়ে খেলছে
অন্ধকার... আর শুনতেও চাইছ না সে শব্দ, যদিও
টানা ফোঁপানি ঢুকে পড়ছে প্রার্থনাগৃহে
তোমাদের দেওয়ালের ওপর শিহরণ
তোমাদের ভেতর ঘরে একটি খুন
তোমাদের মানহানিকর পরিস্থিতিতে একজন যাজক
যে শব্দের ভেতর জলে বসে আছে এবং কিছুই
শুনে উঠতে পারছে না, উপপাদের বাইরে সিদ্ধান্তের
সামনে এসে চিৎকার করছে - এ অঙ্কন মিথ্যা,
এ সতঃসিদ্ধ মিথ্যা আর তোমরা কল্পিত কাঠামোর
ভেতর পাইন ফলের ভেতর তার শাঁসের জন্য অপেক্ষা
করে চলেছ! একটি টেবিল ভেঙে পড়ার অপেক্ষায়
কুঠার হাতে শব্দ করে চলেছ! একটি পশমী ভেড়ার
মৃত্যুচিন্তা করে চলেছ