ঝাউপাতা সিরিজ

অশোক কর




ওড়াও ঝাউপাতা
***************

ঝাউপাতা-, আমাকে ওড়াও !!
ওড়াও বিড়ম্বনা অবিশ্বাসে, সহস্রটুকরো কাঁচের হৃদয়
ওড়াও ঘূর্ণী-হাওয়ায়, চর্তুদশী নষ্টচন্দ্র মুগ্ধতায়
ওড়াও জীর্ণ কল্পণা, কষ্ট অনুভবে
ওড়াও আরো আরো দুরে, চন্দ্রমুখি নারীদের বিনম্র লাবণ্যে

ওড়াও আমাকে ঝাউপাতা-;
ওড়াও চিরকুটে লেখা ভালবাসার লাজুক সম্ভাষণে
ওড়াও আকাশে, কালো জলকণা মেঘেদের সাথে
ওড়াও নীলে আর লালে, বিষন্ন সবুজে-, হারানো শৈশবে
ওড়াও হাসনুহেনার গন্ধভারী প্রজাপতি বৈভবে

ওড়াও ঝাউপাতা-, আমাকে ওড়াও!


নিরন্তর
*******

হৃদয়ে ছায়া নামলে, সন্ধ্যার অপেক্ষায় থাকি . . .
বাতাবীফুলের গন্ধে ভারী বাতাস, শব্দের ফিসফাস
ছায়া নামে চোখে, পাতাদের রং গাঢ় হলে
চারপাশে রহস্যময় চাপাস্বর, টানাপোড়ণ, নৈশব্দ-,
আকন্ঠ সন্ধ্যার অপেক্ষা . . .

বৃষ্টি ধুয়ে দেয় নিস্প্রভ রঙ, মিষ্টি ঢেকে দেয় তিক্ততা
তন্ময় মুগ্ধতা চারপাশে-, ঘুমিয়েছে ঝাউপাতা-,
প্রগাঢ় নি:শ্বাসের নৈকট্য শ্পর্শ করি
উষ্ণতা বুকে নিয়ে অশ্বমেধ সান্ধ্য-অপেক্ষার . . .

মশ্রিণ, অস্ফূট
কথারা বাতাসে ভেসে আসে
ভালবাসার সমস্ত শব্দাবলী
আলোকিত জড়িয়ে আছে তাতে ...

উচ্ছ্বাসপর্ব
*********

শিকড় ছুঁয়েছে গভীরে প্রোথিত পাথর-;
স্বপ্ন পেয়েছে ঠিকানা, মগ্ন উচ্ছ্বাসে ঝাউপাতা
জোনাক আগলে বুকে, থিরথির বাতাসে দুলছে,
কাঁপছে-, কাঁপছে ঝাউপাতা!

আকাশ ডাকছে। আকাশের দুরত্বও আজ স্পর্শযোগ্য,
বিশালতা শিখিয়েছে অন্নিষ্ট, গন্তব্যের ঠিকানা।
জোনাক-উষ্ণতা জ্বালিয়ে রেখেছে ইচ্ছার সংক্রমণ,
মেঘ দিচ্ছে জল, জ্যোৎস্না জড়িয়ে রেখেছে লাবণ্যে-,

উদ্ভাসিত আজ ঝাউপাতা-;
ঝাউপাতা আজ আত্মমুখর
আজ শুধুই ঝাউপাতা
আগামী’র বাকি দিনগুলোও!


সরল সমীকরণ
*************

ঝাউপাতা
অপার মুগ্ধতা মেখে
জেগে আছে রাতভর!
উড়ছে ময়ুরাক্ষী ইচ্ছেডানায়
ছায়াপথজোড়া স্বপ্ন-জ্যোৎস্নায় লাবণ্য ছড়িয়ে!

আকাশ শুধুই স্বপ্ন মোড়ানো বিভ্রম-;
আলোকবর্ষ ছড়ানো ছায়াপথ
নক্ষত্রদের ম্লাণ শোকগাঁথা,
সৌরলোকের অবচ্ছিন্ন শুন্যতা’র নাম

আকাশে সবকিছুই আপেক্ষিক;
মহাকর্ষ, কৃষ্ণগহ্বর, এমনকি জাগতিক মোহমুগ্ধতা
সব নিমিষে হারিয়ে যায় শূন্যে, দিকচিহ্নহীন-,

একমাত্র ঝাউপাতাই জানে
ভালবেসে কি করে মেলাতে হয়
মহাজাগতিক জটিলতার সরল সমীকরণ!


গল্পবলা মাঝরাত
**************

জ্যোৎস্নাভেজা ঝাউপাতা চুঁয়ে
লাবণ্য ঝড়ে পড়ে বালুতে, আঁছড়ে পড়া ঢেউ
চুমুতে চুমুতে জড়ায় ভাস্বর স্বপ্নকণা-, আমি কয়েকটা
স্বপ্নকণা বুকপকেটে ভরে রেখে দিই-;

যদি কোন দিন
ভালবাসাকে তোমরা ভুল করে মুক্তো বলে ডাকো-,
জ্যোৎস্নাকে ডাকো সুপ্রিয় আলোকণা-;
আমি বুকপকেট খুঁজে স্বপ্নকণাগুলো
আবার ফিরিয়ে দেবো বালুতে, ছড়িয়ে দেব নীলজলে।

ঝাউপাতা’কে- অনেক নামেই ডাকতে পারো;
লাবণ্যপ্রভা!
মেঘবালিকা!
জল-কোলাহল!
তবু, কোনকিছুই ঝাউপাতা ভালবেসে
মুগ্ধ-অকৃত্রিম গল্পবলা মাঝরাত নয়!


সান্ধ্য-অনুরাগ ************

ঝাউপাতা মন-উচাটন
বাজছে বেহাগের সুর সান্ধ্য-অনুরাগে
ঘুমিয়ে পরার আগে ঝাউপাতা সাথে নেবে সুর-অনুরণন
সেতারের তারে ভিজছে শান্ত বাতাস!

যারা জানে, তারা জানে;
প্রবালদ্বীপের ঢেউ কখন আছড়ে পড়ে বুকে
কেউ তারস্বরে চেঁচায়, নিরবতা ভেঙে ছেঁড়ে জীবনের সুর
মায়ামুগ্ধ ফুলের প্রজাপতি ওড়ায়!

ঝাউপাতা জানে, সব জানে;
পরিত্যক্ত জাহাজ চন্দ্রাহত দুরে ভেসে যায়
নুপূর ছন্দ তোলে, সেতারের বিষাদে বাজে সন্ধ্যার বেহাগ
বাতাস বৃথাই খোঁজে ঘাসে শিউলী সুবাস!

তবু ঝাউপাতা সান্ধ্য-অনুরাগে
চোখভরা মায়া নিয়ে নক্ষত্রের আকাশ খোঁজে
চারপাশের অবারিত পৃথিবী অাদ্র ভালবাসায় গলে গলে
সারারাত ঝড়ে পড়ে অমলিন স্বপ্নসুখে!