মার্চগীটার

শৌভিক দত্ত


মার্চগীটার

কাঠ গেঁথে যাচ্ছে
রোদের ভেতর পুরনো তুলির শিউলি

বৃক্ষ আসবেই

ধারাবাহিক
চাউনি বদল হবে পোশাকের
এলোদৌড়
চুলের ওই পোষমানা
হয়ত ফাল্গুন
এখন গোলাপের কথা
থাক
সিংদুয়ার
মার্চগীটারে আলতো নূপুরের
খুব তামাশানা
যেভাবে হাসিবুটিক
মেয়েবী খুলে এন্তার ধিকিধিকি
আশ্চর্য্য ভাঙ্গার গল্প ...।


চতুস্পাঠ


পিলপিল হচ্ছে লোহাহারানো বাচ্চারা
চতুস্পাঠে রেফবাড়ীর গজিয়ে ওঠা
বসলেই ধনুষবাণে মন বসছে না
চাক্কুবাজ ভাবছে
ঝিমিয়ে ওঠার পররাত
এই সকালে
মাথাভাসানো উলুধ্বনি নয়
খামোখা ফিরে আসা নয়
মুখভর্তি গুহায়


সেতুর সমানুপাতে
তুমি ওড়না টাঙ্গিয়ে রেখেছ
আজকাল
এসময় শ্রমিক দুহাতে
হাসিভর্তি জাহাজ নামায়
আর তরুণী বিস্কিটে
সন্দেহেরা ঝগড়া করতে থাকে


নোনতা মন্দিরে পাঠানো
তোমার গানে
ঢুকলেই বেদমিতি ঢুকলেই ছদ্মবেশ
প্রার্থনার আড়াআড়ি
আড়ি হাতে জাতীয়সঙ্গীত
আমিদূরে মার্চ ফুটছে ভীষণ
পতাকায় মার্চ ফুটছে ভীষণ
ফুলগুলি কষ্ট হচ্ছে


লোহাহারানো বাচ্চারা
আস্তে আস্তে আড়ি
আস্তে আস্তে জাতীয়সঙ্গীত......।

খেলাভয়

হুবহু দুলছে
দুললেই সালতারং
তীর থেকে দড়ি আর পাতার নাফেরা
ছাপফেলা শরীরে জারা হটকে
গৃহপালিত অক্টোবর
কেউ পোষ রাখছে না আপাতত
ফিডিং বোতলে দাহ্য ও বিশ্রামের টগবগ
খুব উঁচু থেকে দাউ ফেলে


ঝাপসা এগিয়ে দূরবীনে
ক্রমা ক্রমা পাতার স্বত্বগুণ
নীড়ভাসানো অসমাপিকায়
মাইগ্রেট হচ্ছে আতপের ধানকলস
পাখীহারাল যোজনায়
শুকিয়ে রাখা ডানপিটে খেলা ...।।