সন্দেহ

তিলোত্তমা বসু


সন্দেহ

ছায়া পড়েথাকেশুধু
কে পোহায় দেহ ?
সন্দেহে আয়না ভাঙে মুখ
আলো ডুবে আসে
গান থেকে কথারা হারায়
ঘ্রাণ রেখে দূর ঠিকানায়
ফিরে যায় ফুলের অসুখ...

ভাব ভালোবাসা

সুক্ষ্ম দেহে হিমালয় এক লহমায়...
রাজ রাজেশ্বরী মন্দির,সোনার ঘট,
আত্মসূর্য ,ওঁকার ওঁকার....
স্থূল দেহে লোভ,কবে পাকবে কাঁঠাল

গুরুজী হাসেন...চাইলেই যেন নির্বিকল্প !
হাতের মোয়া?---হাসেন আনন্দময়ী মা
আর লাহিড়ীমশাই....

ঢিমে আঁচে ঘন হচ্ছে ক্ষীর
মোহনভোগের গন্ধে সুক্ষ আর স্থূল মিলে
ভাব ভালোবাসা – কুন্দ - বেলপাতা
কলসীর কানা ছুঁড়ে মারা আর
প্রেম কদমের গাছ...

শ্রীজীব গোস্বামী তুলসি মঞ্চে বিড়ে বেঁধেছেন
সারাদিন টুপ টুপ টুপ টুপ
শুধু অশ্রুপাত....


দান

ছকে মারো
ছকেই বাঁচাও
কান্ড দেখে
বনেছি তাজ্জ্বব...আরে !

তোমার ইচ্ছের ঘুঁটি
ঘুরি ফিরি দাবার ভিতরে
খেলেছ আমায় যত
শিখি চাল প্রহারে প্রহারে...

ঘনঘন শ্বাসাঘাত
হয়ে যাই বাজিমাৎ
আমাকে জিতেছ ওই
পুরুষ পয়ারে...

মেঘের কেল্লা
যেমন আহাম্মক তেমন চতুরালি
মুদ্রা ...এপিঠ ওপিঠ
তারের সপ্তমে চড়ে
ছোটে সুর নাগ ও নাগিনী
জ্বলে ওঠে চেরা জিভ ---
বিষের প্রতিভা
কে কাকে সামলায় যদি
সংসার দংশায়

পার্বতীর দেশ ভাসে
দশ হাতে কান্না হাতিয়ার
প্রচন্ড তান্ডবে শিব
পৌরুষ আছড়ান

যেযার একার কুম্ভ
মেঘেদের নিজের কেল্লায়
বাংলায় ভাবনা শুধু
বৃষ্টিপাত কত হবে
এ শারদীয়ায়....