অপুষ্পক

আন্দালীব



অপুষ্পক / ১

দারিদ্রসীমা, তার চে’ আরও নিচে;
ভেস্তে যাওয়া সুপারস্টোরের ছায়ায়
জড়ো হচ্ছে মানুষ।
দিগ্বিদিক ছড়িয়ে পড়া বিপণনের রেণু
আর প্লেগ ঠেলে
আজ যতটা অসুখ জমা হল
এই পণ্যমুখর রাতে,
কামনার ফুল সব নীল হল
অপুষ্পক উদ্ভিদের বাগানে।

তার পাশে জেগে ওঠো তুমি
হে চির-পণ্যের দাস,
ক্ষুধা পেলে তোমার ক্রেডিটকার্ড চিবোও,
লেহন কর।


অপুষ্পক / ২

ধাওয়া কর তাকে,
ধোঁয়ার গতিপথ ধরে।
কলহাস্যের দিকে তাকে
নিক্ষেপ কর।
ভাগাড়ের স্মৃতি আজ
ফিরিয়ে আনছে সম্ভাবনা।
দেখ তারাদের ট্রেইল।
ঘূর্ণমান এই যে অ্যান্ড্রোমিডা
ঢুকে যাচ্ছে ক্রমে
আপন বিস্তারের ভেতর -
সেও জানে প্রমিতি, অন্তর্লীনতা।
ধাওয়া কর; আর ফেলে রাখা
স্মৃতিচিহ্ন তুলে নাও।
দেখ অপুষ্পের ভঙ্গীতে কোথাও
ফুটে আছে গ্যালাক্সি।

অপুষ্পক / ৩
জিভ চিরে দাও
অনুুচ্চারের দিকে নেমে যাক বেদনা
পরিমিত ত্রাণ কর
ফিলানথ্রপির গায়ে আজ তার
ছায়া পড়ে যেন

এই অপুষ্প-ছড়ানো-রাতে
উন্নাসিকের ছলে ঘ্রাণ নাও হাওয়ায়
আর ছোবল লুকিয়ে ফেলো
নাও মৃত্যু অহিফেন -

এই যে পুষ্পভার
এই মিলনের ঋতু
এত ক্ষয়ে যাওয়া কার্পাস -
তার দিকে তুমি ঢলে পড়ো
অতি সামান্য
জানো না পুষ্পযোনি আজ
কাঁপছে তিরতির কী করে


অপুষ্পক / ৪

ফিরিয়ে নাও ফুল
এই মত্ত ঢালাইমেশিন যে' রকম
উগরায় ক্লিংকার
শ্রমঘন দুপুরের পাশে
এসে বসে মৃদু
বিকেলবেলার হাওয়া

চূর্ণ হীরক আর
ঘাসের জঙ্গল থেকে
অনাবৃষ্টির ছাট আসে
উদ্ধত বাবেলের চূড়া
থেকে দেখা যায়
অধঃপতনের দিকে সামান্য
এগিয়ে এসেছে ফুল

অপুষ্পক / ৫

ফুল এক সহজ ক্ষেপনাস্ত্র
যার মোহে জাগে শুক্র
স্থিত হয় নাগ
জ্বলে-নেভে শ্বেত অঙ্গার
আর নাচে যেই হামানদিস্তা
তার আকরের শব্দে বাজে
নগরের উদ্ভট যত গান

আজ থেতো হওয়া বিস্ফোরক
সিলিকা খণ্ড চূর্ণ স্তুপাকার -
তার মাঝে বেড়ে ওঠে
বাগানবিলাস
অপুষ্পক ঋতুর ধারণা
পৃথিবীর নিস্তরঙ্গ হর্টিকালচার