মিসটেক অথবা জন্মদাগ

তমাল রায়

A person who never made a mistake never tried anything new.
Albert Einstein
ধর খুব বৃষ্টি পড়ছে । আর তুমি পথে । কি করবে তুমি? ছাতা খুলবে ? ধর ছাতা
নেই , কি করবে ? দৌড়তে শুরু করবে যেখানে শেড আছে , ধর শেড নেই,কি করবে ? যতটা সম্ভব পারবে দৌড়বে যদি কাছা কাছি কোথাও মাথা বাঁচানো ... ধর তাও নেই , এ এক দিকশূন্যপুর । যেখানে শুধুই ধু ধু প্রান্তর ...
উপায়ান্তর না দেখে অগত্যা ভিজবে , তাই তো ? কিন্তু ভাব একটু ভেজার পর যখন তুমি বৃষ্টিতে Seasoned , আর তো ভয় লাগছে না ? দেখবে এ অকাল বর্ষণ তুমি উপভোগ করছো । আর যারা ভয় পেয়ে দৌড় লাগালো তুমি তাদের দেখে হাসছ । এমনটাই হয় , অন্তত হওয়ার কথা । কারণ তখন তুমিতো জেনে ফেলেছো যা inevitable তাকে সামনে দাঁড়িয়ে সম্মুখীন হতে হয় বুক চিতিয়ে , যেমন মিসটেক ।
সে আছে । ছিল , থাকবে । আকাশের মত বৃহৎ , অনন্তের মত দুর্নিবার , পাগলের মত সে খোঁজে তোমায় , যেমন তুমিও তাকে । হ্যাঁ ,মিসটেক । নইলে সে সর্বজ্ঞ কে যখন জিজ্ঞেস করা হয়েছিল - এ পৃথিবীর সবথেকে বড় মিসটেক কি ? তিনি
বলেছিলেন - মৃত্যু । সকলেই জানি যা অমোঘ ,অথচ তাকে অস্বীকার করার মধ্যেই তো জীবন । কি বিস্ময়কর !
লাটাই তার হাতেই ধরা ,কেবল মাঝে মাঝে সে ‘ ঠিক ’ এর সূতো বসিয়ে ছাড়ে আদতে ভুলের এ সংসারে সে ঠিক নামক প্রহেলিকা । তুমি আহত হতে পার ,পড়ে যেতেও পার । কিন্তু ঠিক উঠে দাঁড়াবেই । আর তাতেই প্রমাণ হবে তুমি যুদ্ধ ক্ষেত্র ছেড়ে পালাওনি । তোমার হাত ধরে রেখেছে সে ,পা ও। সে মিসটেক ।
মনে হয় না এই আমেরিকা এক বিশাল মিসটেক ? এই ভারত ? তুমি ? আমি ? কোথায় পালাবে ? তুমি ভ্যান গখ নও যে উর্সুলা আবদার করলে কান কেটে দিতে পার ,তুমি রাজনীতিবিদ নও যে নিজের মিসটেক অনায়াসে চাপিয়ে দেবে অন্যের ওপর । তুমি তুমি ই। এ ও হয়তবা মিসটেক । তবু এ ‘তুমি’ তেই তো তোমার পূর্ণ অবগাহন । কোনো এক রাতের অন্ধকারে প্রথম যেদিন তুমি পা রাখলে পৃথিবী নামক এক অজানা স্টেশনে , সেই তো শুরু তোমার মিসটেক যাপন । তুমি কান শুনতে ধান শুনতে
পার , কিন্তু তুমি ই তো সে অমৃতস্য পুত্র ,যে ভুল আর ঠিক এর বিভাজন সীমা টানতে গিয়ে একদিন নিজেই...

আসলে জান অলৌকিক ঘটে । আর ঘটে বলেই তুমি কখনো নিশ্চিন্দিপুরের অপু । অথবা লবটুলিয়ার গনু মাহাতো । কিংবা স্রেফ এক ধাতুরিয়া বালক । যে একটু পরে মাথা দেবে ...
তুমি এক স্রেফ হযবরল নিতান্ত অর্বাচীন , যে নুড়ি কুড়োচ্ছে জ্ঞান সমুদ্রের তীরে , দিন শেষে সেই তুমি রয়ে গেছো বালকই কারণ তুমি জানো তোমার সামনে দৃশ্যমান এ কূল কিনারা হীন সমুদ্র আসলে তৈরী তোমারই মিসটেক দিয়ে , যা লঙ্ঘণে উঠে আসবে অমৃত , কবে ? কোথায় ? জানা নেই !
তাই মিসটেক। হ্যাঁ ভুলে ,অথবা অনন্তে একদিন আমরা ‘ ঠিক ’ এ পৌঁছবই । কি বলেন । আপাতত স্বর্গে বিচরণ । আপাতত মিসটেক পার্বণ ।
কিছু মিসটেক । কিছু আলো , অন্ধকার । মিসটেক আদতে এক জন্মদাগ । যা কোনো ইরেজারেই মোছে না ।